পুরষ্কার
প্রকাশিত: মার্চ ৭, ২০১৮
লেখকঃ vickycherry05

 173 বার দেখা হয়েছে

এই লেখক এর আরও লেখা পড়ুনঃ vickycherry05

গল্প লেখকঃ
Mahbuba Upoma
(মার্চ – ২০১৮)
…………

আজকে ঊষা খুব খুশি৷ আকাশের যে চাঁদটার জন্য এতদিন অপেক্ষা করেছিল, সেটা যেন আজ তার হাতের মুঠোয়৷ এতদিনের পরিশ্রমের পুরষ্কার হিসেবে একমাস আগে নতুন চাকরিটা পায় সে৷ জীবনের প্রথম উপার্জন তার ব্যাগের ভিতর মুচকি মুচকি হাসছে৷ তার সাফল্যের পিছনে যেই মানুষটির অবদান তাকে সে একদমই ভুলে যায়নি৷ মানুষটির নাম রাশেদা বেগম৷ ঊষার স্কুলের টিচার ছিলেন৷ কিন্তু ঊষার মনে তার মর্যাদা মায়ের সমান৷ ক্লাস এইটে মা যখন চিরদিনের জন্য ঊষাকে ছেড়ে না ফেরার দেশে চলে যায়, তখন ভোরের সূর্য হয়ে আসেন রাশেদা ম্যাম৷ ব্যবসায়ী বাবা মা মরা মেয়েকে নিয়ে কি করবেন বুঝতে পারছিলেন না৷ আর কিশোরী মেয়ে এদিকে একাকিত্ব আর হতাশায় জীবনের সকল অর্জন হারাতে বসেছে৷ তখন এই রাশেদা ম্যামই ঊষার হাত ধরেন, তাকে বুঝান জীবনে বাঁধা আসবেই কিন্তু বাঁধা ডিঙিয়ে এগিয়ে যেতে হবে৷ তারপর থেকে সব সময় পাশে পেয়েছে রাশেদা ম্যামকে৷

ঊষা একটা শাড়ি কিনেছে রাশেদা ম্যামের জন্য- হালকা আকাশি রঙের৷ দুবছর আগে ম্যামের স্বামী মারা যাওয়ার পর থেকে তিনি আর গাঢ় রঙের শাড়ি পরেন না, সেটা ঊষা কেমন করে যেন জেনেছে৷ ম্যাম নিশ্চয় খুব খুশি হবেন ঊষাকে দেখে৷ ঊষার মুখে সুন্দর এক হাসি খেলে গেল৷

ম্যামের বাড়িতে যাওয়ার পর ঊষার সেই হাসি মুখটা অন্ধকার হয়ে গেল ৷ কি শুনল সে? রাশেদা বেগম নিজ বাড়িতে না থেকে বৃদ্ধাশ্রমে থাকেন? অথচ কত কষ্ট করেই না এই বাড়িটি বানিয়েছিলেন তিনি৷ শেষ পর্যন্ত তারই ঠাই হলো না এই বাড়িতে৷ পেনশনের সব টাকা খরচ করে যে ছেলেকে বিদেশে পাঠালেন সেই ছেলেই আজ মায়ের ভার বহন করতে নারাজ৷ শেষ বয়সে এই পুরষ্কারই কি তার প্রাপ্য ছিল? নাহ! রাশেদা ম্যামের শেষ ঠাই হবে বৃদ্ধাশ্রমে -এটা ঊষা মেনে নিতে পারবে না৷ নিজের কাছে এনে রাখবে তাকে৷ চাকরির টাকায় দুটো মানুষের খুব চলবে ৷ বাবা মারা যাবার পর আর কেই বা আছে তার?

প্রথম দিকে রাজি না হলেও ঊষার অনেক জোরিজুরিতে রাশেদা বেগম ঊষার কাছে থাকতে রাজি হন৷ কিন্তু তার মনে যে ক্ষতটা সৃষ্টি হয়েছে সেটা কি সেরে উঠবে?

সম্পর্কিত পোস্ট

অঘোষিত মায়া

অঘোষিত মায়া

বইয়ের প্রিভিউ ,, বই : অঘোষিত মায়া লেখক :মাহবুবা শাওলীন স্বপ্নিল . ১.প্রিয়জনের মায়ায় আটকানোর ক্ষমতা সবার থাকে না। ২.মানুষ কখনো প্রয়োজনীয় কথা অন্যদের জানাতে ভুল করে না। তবে অপ্রয়োজনীয় কথা মানুষ না জানাতে চাইলেও কীভাবে যেন কেউ না কেউ জেনে যায়। ৩. জগতে দুই ধরণের মানুষ...

আমার জামি

আমার জামি

জান্নাতুল না'ঈমা জীবনের খাতায় রোজ রোজ হাজারো গল্প জমা হয়। কিছু গল্প ব্যর্থতার,কিছু গল্প সফলতার। কিছু আনন্দের,কিছু বা হতাশার। গল্প যেমনই হোক,আমরা ইরেজার দিয়ে সেটা মুছে ফেলতে পারি না। চলার পথে ফ্ল্যাশব্যাক হয়। অতীতটা মুহূর্তেই জোনাই পরীর ডানার মতো জ্বলজ্বলিয়ে নাচতে...

ভাইয়া

ভাইয়া

ভাইয়া! আবেগের এক সিক্ত ছোঁয়া, ভালবাসার এক উদ্দীপনা, ভাইয়া! ভুলের মাঝে ভুল কে খোঁজা, আর ভালবাসার মাঝে ভাইকে খোঁজা, দুটোই এক কথা! ভুল তো ভুল ই তার মাঝে ভুল কে খোঁজা যেমন মূর্খতা বা বোকামি। ঠিক তেমনি ভালবাসার মাঝে ভাইকে খোজাও মূর্খতা! আমার কাছে ভাইয়া শব্দটাই ভালবাসার...

১ Comment

  1. Kazi Salma Binte Solim

    Ma sha Allaah.. <3

    Reply

Submit a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *