মায়াবিনী
প্রকাশিত: জানুয়ারী ২২, ২০১৯
লেখকঃ আওয়ার ক্যানভাস

আওয়ার ক্যানভাস বই প্রেমীদের মিলন মেলা। লেখকদের লেখা পাঠকের কাছে বই আকারে পৌঁছে দেওয়া, আওয়ার ক্যানভাসের সাথে জড়িতদের সম্মানজনক জীবিকার ব্যবস্থা করার স্বপ্ন নিয়েই আমাদের পথ চলা।

 14 বার দেখা হয়েছে

এই লেখক এর আরও লেখা পড়ুনঃ আওয়ার ক্যানভাস

কবিতা: মায়াবিনী
লেখা: ফারহা নূর

শেষ বিকালের কোন এক রোদ্র ছায়ায় হেঁটে যাব তোমার বুকের তপ্ত বালুচরে,
যদি রেখে যাই পদচিহ্ন তোমার বুকে তবে মনে রাখবে মায়াবিনী?
আমি চাই মনে রাখো আমায় আজীবন,
তার জন্যই তো আমার এত আয়োজন।
এই যে দেখছো, তোমার বুকে রক্তিম কাঁটা পদচিহ্ন;
যতবার দেখবে মনে পড়বে তোমার পিছু পিছু ছুটে যেতে রক্তাক্ত পথিক হওয়া।
সে কথা তোমায় বলিনি কোনদিন মায়াবিনী!
যদি ফিরে চাও করুণার জল চোখে সে চোখে আমি তাকাতে পারব না।
ওই যে কৃষ্ণচূড়া গাছটা তোমার পথের সৃষ্টি
সে সৃষ্টিতে আমার নামটা খোদাই করে রেখেছি,
যতবার দেখবে ততবার মনে পড়ুক আমায়।
শশীকান্তের মন্দিরের দেয়ালে যেদিন আড়চোখে তাকিয়েছিলে আমি সেদিন ঠায় দাঁড়িয়েছিলাম তুমি অদৃষ্টে যাওয়া পর্যন্ত।
শেষমেশ আমার ভালোবাসার দূরত্ব মাপতে দেয়ালটায় দিয়ে গেলে!
মায়াবিনী! তোমার মায়ায় আমায় বন্দী না করলে কি হতো না বলো?
করেছ তো করেছোই এই বন্দীর জবান বন্দীও নিলে না, ছাড়পত্রও দিলে না যাবজ্জীবন বন্দী রাখলে!
এ কেমন তুমি? মায়াবিনী!
মুচকি হেসে যখন চোখের তারায় শব্দ বুনতে আমি তখন কত কি বলতে চেয়েছি সে কথা তোমায় বলা হয়নি।
যে ঠোঁটে আমার হৃদস্পন্দন নাড়িয়ে দিতে সে ঠোঁটে এখন নিকোটিনে জ্বালিয়ে দিচ্ছে হৃদস্পন্দন!
এই যে দেখছো, হেসে হেসে কথা বলছি
বুঝলে না বেশ আছি!

সম্পর্কিত পোস্ট

যদি পাশে থাকো

যদি পাশে থাকো

তাসফিয়া শারমিন ** আজকের সকালটা অন্য রকম। সাত সকালে আম্মু বকা দিলো। মানুষের ঘুম একটু দেরিতে ভাঙতেই পারে। তাই বলে এত রাগার কী আছে ?একেবারে যে দোষ আমারও তাও নয়। মানুষ ঘুম থেকে উঠে ফোনে বা দেওয়াল ঘড়িতে সময় দেখে। কিন্তু আমি উঠি জানালার পর্দা সরিয়ে বাইরের আলো দেখে।কে জানে...

কুড়িয়ে পাওয়া রত্ন

কুড়িয়ে পাওয়া রত্ন

অনন্যা অনু 'আমিনা বেগম' মেমোরিয়াল এতিমখানার গেট খুলে ভেতরে ঢুকতেই ওমরের বুকটা ধুক ধুক করতে শুরু করে। ওমর ধীর গতিতে ভেতরে প্রবেশ করে। চারদিকে তখন সবেমাত্র ভোরের আলো ফুটতে শুরু করেছে। ওমর গত রাতের ফ্লাইটে আমেরিকা থেকে এসেছে। সে এসেই সোজা আমিনা বেগম মেমোরিয়াল এতিমখানায়...

দাদাভাইকে চিঠি

দাদাভাইকে চিঠি

প্রিয় দাদাভাই, শুরুতে তোকে শরতের শিউলি ফুলের নরম নরম ভালোবাসা। কেমন আছিস দাদাভাই? জানি তুই ভালো নেই, তবুও দাঁতগুলো বের করে বলবি ভালো আছি রে পাগলী! দাদাভাই তুই কেন মিথ্যা ভালো থাকার কথা লেখিস প্রতিবার চিঠিতে? তুই কি মনে করিস আমি তোর মিথ্যা হাসি বুঝি না? তুই ভুলে গেছিস,...

৪ Comments

  1. আফরোজা আক্তার ইতি

    বাহ বা! অসাধারণ। মনের মাঝে হানা দিল কবিতাটা।
    যে ঠোঁটে আমার হৃদস্পন্দন নাড়িয়ে দিতে সে ঠোঁটে এখন নিকোটিনে নাড়িয়ে দিচ্ছে আমার হৃদস্পন্দন। কি সুন্দর করে সাজালেন কথাটা! এই চরণটা যেন পুরো কবিতার ভাবার্থ প্রকাশ করছে। এককথায় মন ছুঁয়ে গেছে কবিতাটি।
    জবান বন্দীও- জবানবন্দীও। একসাথে হবে।
    এছাড়া আর কোনো বানানে ভুল পাই নি।
    আপনাকে অনেক শুভ কামনা।

    Reply
  2. Halima tus Sadia

    অনেক সুন্দর লিখেছেন আপু।
    প্রতিটি লাইন হ্নদয়ে বেজে উঠে।

    আমি চাই মনে রেখো আজীবন।
    তাই তোমার জন্য এতো আয়োজন।
    তোমার জন্য রক্তিম কাটা পদচূন্য।

    প্রিয়জনের জন্য কতো কিছুর আয়োজন।

    শুভ কামনা রইলো।

    Reply
  3. আসিফুর রহমান ফারাবী

    কবিতাটা এক কথায় অসাধারণ হয়েছে ফারাপু। আসলেই তুমি অনেক ক্রিয়েটিভ। তোমার ক্রিয়েটিভিটি লেভেল অনেক। ভবিষ্যতের জন্য অনেক অনেক শুভকামনা।

    Reply
  4. Md Rahim Miah

    কোন-কোনো (কোন দিয়ে প্রশ্ন বুঝায়)
    যাব-যাবো(যেহেতু তুমি বলেছে)
    কোনদিন-কোনোদিন
    ঠায়-ঠাঁয়
    এ কেমন তুমি? মায়াবিনী! -এ কেমন তুমি মায়াবিনী?(প্রশ্নবোধক চিহ্ন শুধু শেষে হবে)
    বাহ্ অসাধারণ লিখেছেন, আপনে মেয়ে হয়ে ছেলেদের অনুভূতি নিয়ে আর উপস্থাপক হয়ে ভালো লিখেন দেখছি। আপনার যেমন একটা চিঠিও পড়েছি যার মাঝেও ছেলেদের অনুভূতি উল্লেখ। যাইহোক ভুলের দিকে আগামীতে খেয়াল রাখবেন আশা করি আর অনেক অনেক শুভ কামনা রইল।

    Reply

Submit a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *