মামা, এক কাপ চা খাবেন?
প্রকাশিত: জানুয়ারী ৩১, ২০১৮
লেখকঃ vickycherry05

 196 বার দেখা হয়েছে

এই লেখক এর আরও লেখা পড়ুনঃ vickycherry05

লেখকঃ
অলিক মানুষ
………

এলাকার অলিগলি পথেঘাটে অনেক চায়ের দোকান-টং ই দেখা যায় রোজ। তবে একটা লোক ছিল_যে প্রতিদিন সন্ধ্যার পর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত এলাকাজুড়ে হেঁটে বেড়াত আর চা-কফি বিক্রি করতো_মাঝে মাঝে বড়মাঠের বটগাছটার নিচে বসে বিশ্রাম নিতেন। মাথায় একটি সাদা টুপি পড়ত লোকটা।
লোকটার বয়স আনুমানিক ৫৫-৬০ বছর হবে।লোকটাকে আমি প্রথম প্রথম যতদিন দেখতাম,এক নজরে তাকালে প্রথম তার যে ব্যাপারটি আমাকে সবচেয়ে বেশি ভাবাত,তা ছিল তার_গুঁজো হয়ে ধীর গতিতে হাটা। কারণটা নিয়ে বেশকিছু দিন ভেবেছি,ভাবনার কুলকিনারায় পৌঁছাতে পারিনি।
একদিন বড়মাঠের বেঞ্চটায় বসে বসে ভাবছি,চাকরির প্রমোশন নিয়ে।
এমন সময় পেছন থেকে এসে লোকটা বললো,

[-মনটা খারাপ মামা?
মামা,এক কাপ চা খাবেন ?
-রঙ চা দিন এককাপ।
-মামা আদা দিমু চায়ে ?
-হুম,দিলে ভালো হয় ।
(গভীর মনোযোগে তিনি ফ্লাক্স থেকে ফুটন্ত গরম পানি ঢালছেন)

-আচ্ছা মামা,আপনি কী শুধু চা-ই বিক্রি করেন?
-মামা দিনেরবেলায় একটা কিন্ডারগার্ডেন স্কুলে দারোয়ানি করি।এক ধান্ধায় সংসার কী চলে মামা?আপনারা তো শিক্ষিত মানুষ,বুঝেন সবই।

-আপনার কয়জন ছেলে-মেয়ে ?
-চারজন।
-তারা কতটুকু,কাজকর্ম করে ?
-জ্বী মামা,দুই পোলা বিদেশ পাঠাইছি গেরামের ভিটি বিক্রি কইরা।সেজো পোলা কেলাস সিক্সে(6) পড়ে,ছোট একটা মাইয়া আছে, থিরিতে(3) পড়ে ।
আর বউ অসুস্থ, বিছানায় পড়া । ]
আরো কিছুক্ষণ তার সাথে কথাবার্তা হলো
ভালোই লাগলো, একজন চা ফেরিওয়ালা এমন সুক্ষ্ম চিন্তার মানুষ ,ভেবে ভালো লাগছে।

আরো কয়েকদিন নিয়মিত কথে বলে জানতে পারলাম,লোকটা পোলিও রোগে আক্রান্ত, তাই সে সোজা হয়ে স্বাভাবিক গতিতে হাটতে পারেন না,
‘ছেলেরা নিজেদের সংসার চালাতে হিমসিম খাচ্ছে,তাই পিতাকে কোনোভাবেই সাহায্য করতে পারছে না’_এমনটাই ধারণা ফেরিওয়ালা এই সাদেক মিয়ার।

সাদেক মিয়াকে বেশ কয়েকবার অফার করেছিলাম,’আপনি আমাদের বাগানটা একটু দেখাশোনা করুন,আপনার সংসারের সব খরচাপাতি আমার,তবুও দয়াকরে আর চা ফেরি করবেন না,দেখলে মনে আচোট লাগে’।
কিন্তু কোনো ফায়দা হয়নি,তিনি উল্টো আমাকে প্রতিবারই ‘ছোট বড় কোনো কাজই হেয় করা উচিৎ না’ এই যুক্তিতে পরাজিত করেছেন।

হঠাৎ একদিন খবর এলো আমার চাকরির ৩ বছরের ফরেইন ট্রান্সফার অস্ট্রেলিয়ায়
পরিবার পরিজন সব মায়া ত্যাগ করে চলে গেলাম অস্ট্রেলিয়া।কিছুই ভালো লাগছিল না ওদিকে। রাত হলেই সিডনির ফুটপাতে হাটতে হাটতে মনে পড়ে যেতো সাদেক মিয়াকে।মাঝে মাঝে মোবাইলে কথা হতো,তিনি বলতেন_তিনি নাকি এখন খুব সুখে আছেন,সংসার ভালোই চলছে।হঠাৎ দেশে ফেরার বেশ কয়েকমাস আগে থেকেই তার সাথে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়,ফোন সুইচড অফ।

দীর্ঘ ৩ বছর পর দেশে ফেরার আগেরদিন অনেক কেনাকাটা করেছিলাম সবার জন্য। সাদেক মিয়ার জন্য একটা সাদা পাঞ্জাবি,তার মেয়েটার জন্য একটা রিমোট কন্ট্রোলার হেলিকপ্টার কিনলাম,ছেলেটার জন্য একটা মোবাইল।

পরদিন Sydney Kingsford Smith International Airport থেকে Etihad এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে বেলা ২.৪৫ মিনিটে হজরত শাহজালাল অান্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ভুমিতে পদার্পণ করি।

ভেবেছিলাম আগেই একটা uber নিয়ে সাদেক মিয়ার বাড়ি যাব।আমি নিশ্চিত তাকে কেউ বলেনি যে আজ আমি আসবো,আমাকে দেখেই হয়তো চমকে যাবেন সাদেক মিয়া।

কিন্তু তার বাড়িতে গিয়ে তা হলো না,বরং আমিই চমকে গেলাম তার স্ত্রীর মুখের কথা শুনে_
‘ভাইজান,ওর বাপের ক্যান্সার হইসিলো,শেষমেশ ৫ মাস হইব চইলা গেসে ওইপারে’।

কথাটা শুনে আমার খুব কষ্ট হচ্ছিল দাঁড়িয়ে থাকতে,সেদিন আমি দেখেছিলাম একজন সাদেক মিয়াকে,একজন সত্যিকারের শক্ত মানুষকে,যিনি হাজারো কষ্ট অভাবের মধ্যে থেকেও অন্যের কাছে হাত পাতেন নি।

সাদেক মিয়ার সেজো ছেলেকে সাথে নিয়ে কবরটা দেখতে চলে গেলাম,
তার কবরের পাশে একটা বিশাল আকৃতির বটগাছ,অজানা কোনো কাজের দায়িত্বভার নিয়ে অবিচল দাঁড়িয়ে আছে,
কিছুক্ষণ নিশ্চুপ দাঁড়িয়ে রইলাম,তখন বারবার কানে এসে উপস্থিতি দিচ্ছে সেই অনেক বছর পুরোনো কথাটা_

‘মামা,এক কাপ চা খাবেন?’

এপারে হয়নি তো কী হয়েছে,আল্লাহ্‌ -র রহমতে ওপারে নিশ্চিত ভালো থাকবেন সব সাদেক মিয়াঁরা সেই কামনাই করি ।

সম্পর্কিত পোস্ট

শয়তানকে পরাজিত করুন –

শয়তানকে পরাজিত করুন –

কোন এক দাওয়াতে এক ভাবী গল্প করছিলেন যে, এক মহিলা যখন তার Husband রাগ হয় তখন তিনি আয়াতুল কুরসি পড়েন আর তার স্বামী বিড়াল হয়ে যান । তখন আর এক ভাবী বললেন," ভাবী - আয়াতুল কুরসি পড়লে উনার স্বামী বিড়াল হন না বরং ঐ মহিলার সাথের শয়তানটা পালিয়ে যায়” । ভাবীদের এই...

একজন মানুষের গল্প

একজন মানুষের গল্প

দুই টাকার আইসক্রিম, বই সামনে নিয়ে চিৎকার করে পড়া, কলম দিয়ে এক অক্ষর বারবার লিখে হাত ব্যাথা সহ্য করতে করতেই ছোটবেলা কাটিয়ে দেওয়া। একটু বড় হওয়ার পর ছন্নছাড়া হয়ে যাওয়া। ক্লাস ফাঁকি দিয়ে বন্ধুদের নিয়ে আড্ডা দেয়া কোনো এক বট তলা। যেখানে বসে আড্ডা দিত কয়েকজন স্কুল পালানো...

অস্ফুট কান্না

অস্ফুট কান্না

লেখা: মোহসিনা বেগম , প্রচণ্ড শীত পড়েছে আজ। চারদিক কুয়াশা যেন চাদর বিছিয়ে রেখেছে। সকাল এগারোটা বেজে গেছে এখনও সূর্যের দেখা নেই। ছুটিতে কয়েকটা দিন গ্রামে থেকে আনন্দ করব কিন্তু প্রচণ্ড শীতে জমে যাচ্ছি। লেপের নীচ থেকে বের হতেই ইচ্ছে করছে না। ওদিকে মা কতক্ষণ ধরে ডেকেই...

৪ Comments

  1. Farhana

    আসাধারণ গল্পটি????????

    Reply
  2. Saim Ahmed

    kichu manus ache zotoi koste thakuk kintu hat pAtbe na.

    Reply
  3. Cutiepie Girl

    Simplicity is best.

    Reply
  4. সাকি সোহাগ

    ভালো লাগছে।

    Reply

Submit a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *