দায়
প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারী ৪, ২০১৮
daay
লেখকঃ vickycherry05

 28 বার দেখা হয়েছে

এই লেখক এর আরও লেখা পড়ুনঃ vickycherry05

গল্প লেখকঃ
Moniruzzaman Sarkar
(ফেব্রুয়ারী)
…………………

সকালের ট্রেনে ঢাকা গিয়েছিলাম। কাজ শেষে ফিরতি ট্রেনে এই মাত্র রাজশাহী পৌঁছালাম। ট্রেন ঘন্টা দুয়েক লেট। তার উপর ১৬ আনা রাস্তার ১২ আনাই দাঁড়িয়ে এলাম। চাটমোহর স্টেশনে এসে এক ব্যক্তির পাশে বসার সুযোগ হলো। তিনি আপাদমস্তক ভদ্রলোক। মধ্যবয়সী ব্যক্তিটি অসম্ভব বিনয়ীও বটে। কিছুক্ষণের মধ্যেই ভদ্রলোকের সাথে গল্প শুরু হয়ে গেল…
-তুমি কি কর বাবা?
-পড়াশুনা করি।
-কোথায় পড়ো?
– যথারীতি উত্তর দিলাম
-কোন বিষয়ে?
-এবারও উত্তর দিলাম।
-কোন ইয়ার?
-বললাম মাস্টার্সে পড়ি।
এবার ভদ্রলোকটি আমার রেজাল্ট শুনতে চাইলেন। আমি মনে মনে প্রচন্ড বিরক্ত হলেও যথাসম্ভব হাসিমুখে উত্তর দিলাম। তারপর ভদ্রলোক বললেন উনার ছেলে ঢাবিতে Applied Physics এ পড়ে। আমার তো বুঝতে বাকি রইলো না তিনি তার ছেলের প্রসঙ্গ তোলার জন্যই এতগুলো কথা বললেন।
ভদ্রলোক-বাবা আমার ছেলে তো অনার্সে ফার্স্ট ক্লাস ফার্স্ট হইছে।
আমি-(চরম অবাক হওয়ার ভান করে) ওমা তাই নাকি!!! ভালো তো।
-ওকে তো গোল্ড মেডেল দিবে।
-খুব ভালো।
-শোনো বাবা আমার ছেলে কিন্তু Excellence award ও পাবে। সকল ফার্স্টরাই কিন্তু এই award পায় না। আমার ছেলে ডবল গোল্ডেন পেয়েছিল আর অনার্সে ৩.৯২ পেয়েছে তাই পাবে।
-Excellent.
-ওকে তো ঢাবিতে টিচার হওয়ার জন্য ডাকতেছে।
-ভালোতো
-কিন্তু এত কম বেতন দিয়ে ও কি করবে?
-তা ঠিক
-বাবা আমার মেয়েটাও ঢাবিতে পড়ে
-কোন বিষয়ে?
– ফিশারিজ
একমাত্র ছেলে আর মেয়েটার সাফল্যের গল্প করতে গিয়ে তিনি একধরনের তৃপ্তি অনুভব করছিলেন।
বিষয়টা খেয়াল করে নিজের অজান্তেই চোখের কোনে জল চলে এলো। আমার বাবা ট্রেনে/বাসে যাওয়ার সময় পাশে বসা ছেলেটাকে বলতে পারেন না,’এই ছেলে তুমি কোথায় পড়ো কিংবা তোমার রেজাল্ট কি?’ বাবার কলিগরা যখন তাদের ছেলেমেয়েদের সাফল্যের গল্প করে তখন আমার বাবাকে কেবল শ্রোতা হতে হয়।
তুমি তো আমার কাছে কিছু চাওনি? তুমি কেবল আমাকে নিয়ে গর্ব করতে চেয়েছিলে। আমি তোমার সেই সামান্য চাওয়াটুকুকে পাওয়ায় পরিণত করতে পারিনি। বাবা অক্ষমতার জন্য আমায় ক্ষমা করো।

সম্পর্কিত পোস্ট

মা

মা

ইশু মণি বাহিরে ঝুম বৃষ্টি হচ্ছে তাসবিহ্ ঘরের দরজা জানালা সব বন্ধ করে ঘরের এক কোণে গুটিসুটি মেরে বসে আছে।টিনের চালে বৃষ্টির ফোঁটা পড়ায় অনবরত শব্দ হচ্ছে, বাসার সাথে লাগানো পেয়ারা গাছটার বিশাল বড় ডালপালা গুলো চালের উপর চলে এসেছে বারবার সেগুলো বারি খাচ্ছে যার কারণে শব্দ...

শখের পাখি

শখের পাখি

লেখিকা-উম্মে কুলসুম সুবর্ণা এই তো সেদিন মেলা থেকে বাসার ছোট্ট ছেলেটা আমাকে কিনে এনেছিলো। তখন তো ছানা পাখি ছিলাম এখন বুড়ো হয়েছি। বাসায় মোট ছয়জন থাকে। আগে ভাবতাম দুই রুমের ক্ষুদ্র ফ্ল্যাট এ এত গুলো মানুষ কিভাবে থাকতে পারে। পরে বুঝলাম এই সব কিছু ছেলের বউয়ের চমৎকার। অনেক...

নীল কমলিনী

নীল কমলিনী

অনুগল্প: নীল কমলিনী লেখা: অনুষ্কা সাহা ঋতু . চন্দনের শেষ ফোঁটাটা দিয়েই মা ঝরঝর করে কেঁদে ফেললেন। ছোট বেলায় এমন কত সাজিয়েছেন আমাকে। তখন মুচকি মুচকি হাসতেন, আর আজ কাঁদছেন। মা টাও ভারি অদ্ভুত। আচ্ছা, তবে কি দুটো সাজের অর্থ ভিন্ন! কি জানি? . হঠাৎ শঙ্খ আর উলুধ্বনি ভেসে...

০ Comments

Submit a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *