বিশেষণ
প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারী ৮, ২০১৮
লেখকঃ vickycherry05

 167 বার দেখা হয়েছে

এই লেখক এর আরও লেখা পড়ুনঃ vickycherry05

গল্প লেখকঃ
নূর-এ-জাহান বিলকিছ
(ফেব্রুয়ারী’১৮)
………………

বিশেষণ
নাফাদ: ‘তুমি অনেক গুণবতী মেয়ে। অসাধারণ তোমার লেখনী। কি করে পারো এতো?যে ছেলে তোমায় বিয়ে করবে,তার তো রাজ কপাল!’
কথা গুলো শুনে নিতু একবার চোখ বন্ধ করে। ভেতরকার কষ্ট আর সমাজের প্রতি যে ঘৃণাবোধ নাড়া দিয়ে উঠছে,তার তীব্রতা অনেক। কিছুক্ষণ চুপচাপ কাটে,তারপর নিষ্পলক তাকিয়ে সে প্রশ্ন করে- ‘বিয়ে করবেন আমায়?’
নাফাদ ভাবতে পারেনি নিতু এমন করে বলবে। অবাক হয়ে বলে – ‘আমি?’
-‘হুম,আপনি। করবেন??’
নাফাদ ইতস্ততা বোধ করে। প্রশংসা টা কি বেশি হয়ে গেলো? মনে মনে চিন্তা করে। না,নিতু সত্যি গুণবতী মেয়ে,এতে সন্দেহ নেই। কিন্তু বউ হিসেবে নাফাদের কল্পলোকে যে বাস করে তার চামড়ার রঙ এমন বেঢপ মার্কা কালো না, উচ্চতায়ও মানানসই। মনোলোকের সাথে বাস্তবতার বিরোধ নিয়ে একটা জীবন কাটবে না। নিজের মনের আলোচনা থামিয়ে নাফাদ বলে- ‘শোনো নিতু,যে যার যোগ্য না তাকে সেই আসন দিও না। তুমি অনেক গুণবতী মেয়ে, স্মল ব্ল্যাক ডায়মন্ড বলা হয় তোমাকে! তুউউমি ভালো ছেলে পেয়ে যাবে। আমার মতো সৃষ্টি ছাড়া মানুষ,তোমার যোগ্য হবে না।’
নিতু উচ্চস্বরে হাসে। হাসতে হাসতে বলে- ‘তোমার মতো কতজন এমন কথা বলেছে, জানো?’ এরপর জিজ্ঞাসু চোখে বোধহীন নাফাদের ঠোঁট জোড়া ভালো করে দেখে।
না,নাফাদের কাছে কোনো উত্তর নেই। যেমন উত্তর নেই বৈষম্যভেদ্য প্রকৃতির কাছেও! নিতু অবাক হয়নি। স্বাভাবিক ভাবেই বাড়ি ফিরে আসে।

আজ নিতুর একটা কবিতা পত্রিকায় ছাপা হয়েছে। বাংলাদেশের নামী পত্রিকা। সম্পাদক সাহেব ফোন করে বললো- ‘তুমি অনেক ভালো লেখো,অসাধারণ প্রতিভা তোমার। তুমি তো অনেক গুণবতী মেয়ে! রিয়েলি ইউ আর এ স্মল ব্ল্যাক ডায়মন্ড।’
নিতু ফোন কেটে দেয়। সৌজন্যবোধের ধন্যবাটুকুও দেয়নি। ‘স্মল ব্ল্যাক ডায়মন্ড’ শব্দটা আগে কানে বাজতো, ভালো লাগতো। এখন নিউরনে এসে আঘাত করে। ডায়মন্ড শব্দের আগে ছোট ছোট বিশেষণ,নিষ্পেষণ করে অপূর্ণতা কে।
তাই এমন প্রশংসায় নিতু কেবল হাসে।

নিয়মমতো নিতুর এখনও হাসা উচিত। বীভৎস হাসি, সমাজ ও প্রকৃতির প্রতি, ঘৃণাময় হাসি। কিন্তু নিতু হাসতে পারছে না। ফ্যাকাসে মুখ নিয়ে তাকিয়ে আছে আয়নার ব্ল্যাক এন্ড স্মল প্রতিবিম্বর দিকে……

সম্পর্কিত পোস্ট

মা

মা

ইশু মণি বাহিরে ঝুম বৃষ্টি হচ্ছে তাসবিহ্ ঘরের দরজা জানালা সব বন্ধ করে ঘরের এক কোণে গুটিসুটি মেরে বসে আছে।টিনের চালে বৃষ্টির ফোঁটা পড়ায় অনবরত শব্দ হচ্ছে, বাসার সাথে লাগানো পেয়ারা গাছটার বিশাল বড় ডালপালা গুলো চালের উপর চলে এসেছে বারবার সেগুলো বারি খাচ্ছে যার কারণে শব্দ...

শখের পাখি

শখের পাখি

লেখিকা-উম্মে কুলসুম সুবর্ণা এই তো সেদিন মেলা থেকে বাসার ছোট্ট ছেলেটা আমাকে কিনে এনেছিলো। তখন তো ছানা পাখি ছিলাম এখন বুড়ো হয়েছি। বাসায় মোট ছয়জন থাকে। আগে ভাবতাম দুই রুমের ক্ষুদ্র ফ্ল্যাট এ এত গুলো মানুষ কিভাবে থাকতে পারে। পরে বুঝলাম এই সব কিছু ছেলের বউয়ের চমৎকার। অনেক...

নীল কমলিনী

নীল কমলিনী

অনুগল্প: নীল কমলিনী লেখা: অনুষ্কা সাহা ঋতু . চন্দনের শেষ ফোঁটাটা দিয়েই মা ঝরঝর করে কেঁদে ফেললেন। ছোট বেলায় এমন কত সাজিয়েছেন আমাকে। তখন মুচকি মুচকি হাসতেন, আর আজ কাঁদছেন। মা টাও ভারি অদ্ভুত। আচ্ছা, তবে কি দুটো সাজের অর্থ ভিন্ন! কি জানি? . হঠাৎ শঙ্খ আর উলুধ্বনি ভেসে...

৪ Comments

  1. Asma

    অনবদ্য রচনা।

    Reply
  2. Asma

    ভালো লাগলো, কঠিন বাস্তবতা ফুটে উঠেছে।

    Reply
  3. mim

    অনেক ভালো লিখেছেন আপু, আপনার লেখার হাত চমৎকার।

    Reply
  4. Irin akter

    গল্পটি বেশ ভালো লাগলো।

    Reply

Submit a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *