অনুদ্ভূত
প্রকাশিত: অগাস্ট ৬, ২০১৮
লেখকঃ

 95 বার দেখা হয়েছে

এই লেখক এর আরও লেখা পড়ুনঃ

লেখিকা :- সানজিদা বেগম (প্রীতি)

বিয়ের তিন বছর পর অরণি মা হতে চলেছে।এখন তার তিন মাস চলে।স্বামী সংসার নিয়ে খুব ভালোই দিন কাটছে তার।শ্বশুর-শাশুড়ির কোনো ঝামেলা নেই কোটিপতি হ্যাজবেন্ডকে নিয়ে আলাদা থেকে সে।
.
সন্ধ্যাবেলা অরণি ঘুমাচ্ছিল হঠাৎ ছোট বাচ্চার হাসির শব্দে তার ঘুম ভেঙ্গে যাই।ঘুম থেকে উঠে বসে সে ভাবতে লাগলো হয়তো মনের ভুল ঠিক তখনি আবার বাচ্চার হাসির শব্দ শুনতে পেল সে।বাচ্চার শব্দ কোথেকে আসছে! বাসায়তো আমি ছাড়া আর কেউ নেই তাহলে বাচ্চা আসবে কোথেকে!
হাসির শব্দটা ড্রইংরুম থেকে বেসে আসছে মনে হচ্ছে অরণি বেড থেকে নেমে আস্তে আস্তে ড্রইংরুমের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।ড্রইংরুমে এসে দেখে আরেহ এখানেতো কেউ নেই!হাসির শব্দটাও নেই! ধুর সবটুকু ছিলো তাহলে আমার মনের ভুল এভেবে অরণি তার পেটে হাত রেখে তার অনাগত সন্তানের উদ্দেশ্যে বলে উঠলো,
“কি বাবা একা একা হাসা হচ্ছে?আর দেখো মা কি না কি ভেবে ভয় পাচ্ছি।আমার কলিজাটার কথা আমি একদম ভুলে গেছি।বাবা আসার সময় হয়েছে এইজন্য বুঝি এতো হাসি হুম?”
ঠিক তখনি কলিংবেল বেজে উঠলো অরণি চমকে গিয়ে বললো,
-ওই দেখো বলতে না বলতে বাবা চলে এসেছে।
দরজা খুলতেই রাফিকে দেখলো অরণি। কিন্তু রাফিকে অন্যরকম দেখাচ্ছে আজকে।রাফিকে এমন দেখে অরণি জিজ্ঞাস করলো,
-কি ব্যাপার আজকে চোখ মুখ এতো লাল কেন তোমার?অফিসে কি কাজের চাপ ছিলো?
অরণির কোনো কথার উত্তর না দিয়ে রাফি ভিতরে ঢুকে সোজা রুমে চলে গেলো। অরণি রুমে আসতেই দেখলো রুমে কেউ নেই এটা দেখে চিন্তায় পড়ে গেল অরণি ঠিক তখনি বাথরুম থেকে পানি পড়ার শব্দ শুনা গেলো। অরণি বাথরুমের সামনে গিয়ে বললো,
-কি ব্যাপার কি হয়েছে তোমার?আজকে এসেই গোসলে করছো যে?তোয়ালেটাও তো সাথে নিয়ে ঢুকলা না।
আবার কলিংবেল বেজে উঠলো।
কলিংবেলের শব্দে অরণি চমকে উঠলো। কি ব্যাপার এখন আবার এই সময়ে কে আসলো?অরণি দরজা খুলে ভূত দেখা মত দাঁড়িয়ে আছে।
-কি হলো?এমন ভাবে দাঁড়িয়ে আছো যে?সরি আজকে তাড়াতাড়ি আসার কথা ছিলো কিন্তু রাস্তায় যে জ্যাম ছিলো কি বলবো.. এই অরণি কি হলো তোমার?এমন অভাক আর ভীত চোখে কি দেখছো?
-তুমি যদি এখানে হও তাহলে বাথরুমে কে?একটু আগে কে আসলো? কথাটা বলে অরণি রুমের দিকে দৌঁড় দিলো। নাহ রুমে কেউ নেই বাথরুমে কেউ নেই!
অরণিকে এভাবে দৌঁড়তে দেখে রাফিও তার পিছু পিছু ছুটল।
অরণি শুধু বলে যাচ্ছে এখানেইতো ছিলো এখানেইতো ছিলো অরণিকে এমন করতে দেখে রাফি তাকে জড়িয়ে ধরে বলে এইতো আমি এখানেই তোমার সামনে দাঁড়িয়ে আছি।অরণি বলে উঠে, না রাফি একটু আগে কেউ এসেছিলো তোমার মত দেখতে এসেই সে বাথরুমে চলে যাই বিশ্বাস করো আমি সত্যি বলছি।
অরণির এমন পাগলামি আর ভয়ার্ত মুখ দেখে রাফি বুঝেছে অরণি কিছু দেখে ভয় পেয়েছে।রাফি অরণিকে সান্ত্বনা দিয়ে বলছে,
-কালকে না হয় আব্বা-আম্মাকে এখানে নিয়ে আসি সারাদিন তুমি একা বাসায় থাকো কি না কি নিয়ে চিন্তাভাবনা করো বাসায় কেউ থাকলে কথা বলার জন্য ও তোমার মানুষ হবে সময়ও কেটে যাবে।
রাফির এমন কথা শুনে অরণি বলে উঠে,
-না কাউকে নিয়ে আসার কোনো প্রয়োজন নেই।আমার একা থাকতে মোটেও খারাপ লাগে না।তুমি কাউকে নিয়ে আসবা না বলে দিলাম।
অরণির মনের লোভ সব কিছু তার একার চাই এতে কাউকে সে ভাগ বসাতে দিবে না।
কথা আর না বাড়িয়ে অরণি রাফিকে ফ্রেশ হয়ে আসতে বললো।
.
গভীর রাত ঘুমে অচেতন অরণি রাফি দুজনেই। হঠাৎতি আবার সে হাসির শব্দ শুনা যাচ্ছে।হাসির শব্দে অরণির আবারও ঘুম ভেঙ্গে যাই।হুরমুর করে উঠে বসে সে ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখে ঘড়িতে ৩:১০ বাজে।গলা শুকিয়ে কাঠ হয়ে আছে।পানি খাওয়ার জন্য খাটের পাশে রাখা গ্লাসের দিকে হাত বাড়ায় সে। গ্লাসে পানি নেই। এইদিকে পানির পিপাসায় তার বুক ফেঁটে যাচ্ছে।খাট থেকে নামতে যাবে তখনি আবার হাসির শব্দটা শুনলো।আবারও বাচ্চার হাসির শব্দ!এবারও ড্রইংরুম থেকে আসছে শব্দটা।অরণি নেমে গিয়ে ড্রইংরুমে গেলো। কি আশ্চর্য! একটা ফুটফুটে বাচ্চা নিচে বসে তার দিকে তাকিয়ে আসছে।বাচ্চাটার বয়স হয়তো ৩ বছর হবে চোখের দেখায় যতটুকু অরণির মনে হলো কিন্তু এই বাচ্চাটা এখানে কোথেকে কিভাবে আসলো?দরজা তো আমি ভালো করে বন্ধ করেছি। অরণি মনে মনে ভাবতে লাগলো। বাচ্চাটার চোখে মুখে কি যে মায়া।একটা বাচ্চা মেয়ে।অরণি বাচ্চাটার কিছুটা কাছে এগিয়ে গেলো তখনি ড্রইংরুমের জানালাটা সজোরে শব্দ করে খুলে গেলো। জানালা খুলার শব্দে অরণি জানালার দিকে তাকাতেই দেখলো একটা ছায়া জানালার পাশ থেকে সড়ে গেলো জানালার থেকে চোখ ফিরিয়ে বাচ্চাটার দিকে তাকাতেই দেখলো সেখানে কোনো বাচ্চাই নেই!অরণি ভয়ে দু’পা পিছিয়ে গেলো। তার মনে হচ্ছে জানালার ওপাশ থেকে কেউ তার দিকে তাকিয়ে আছে ভয়ে ভয়ে সে জানালার দিকে তাকাতেই দেখলো জানালা বন্ধ! কিন্তু কিছুক্ষণ আগেও এই জানালা খোলা ছিলো এখানে একটা বাচ্চা ছিলো এখন কিছুই নেই! হিসেবটা মিলাতে না পেরে অরণি ভয়ে রুমের দিকে দৌঁড়ে চলে আসলো।বিছানায় বসে সে হাঁপাচ্ছে। পাশে রাখা গ্লাসের দিকে তাকাতেই তার চোখ যেন সেখানেই আটকে গেলো.. আশ্চর্য! গ্লাসেতো কোনো পানি ছিলো না তখন এখন পানি আসলো কোথেকে?!অরণি পানির গ্লাসের দিকে তাকিয়ে বসে আছে তখনি আবার সেই হাসির শব্দ শুনতে পেল! ভয়ে তার হাত পা ঠান্ডা হয়ে আসছে।সে আর বসে থাকতে পারছে না তাড়াতাড়ি শুয়ে গিয়ে সে রাফিকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরলো আর মনে মনে আল্লাহ্কে ডাকতে লাগলো।
.
পরেরদিন রাফি অফিসে যাওয়ার সময় অরণি রাফিকে বলে দিলো তাড়াতাড়ি যেন বাসায় ফিরে আসে।রাফি চলে যাওয়ার পিছনে অরণি নিজের কাজ গুলো করতে লাগলো। অরণি তার নিজের রুম গুছাচ্ছিল তখনি তার রুমের দরজার সামনে থেকে বাচ্চা কন্ঠে কেউ তাকে বলে উঠলো,
-মাম্মা মাম্মা
অরণি চমকে উঠে পিছনের দিকে তাকাতেই দেখে কালকে রাতের সে বাচ্চাটা রুমের সামনে দাঁড়িয়ে তার দিকে তাকিয়ে হাসছে আর তাকে মাম্মা মাম্মা বলে ডাকছে।অরণি দাঁড়ানো থেকে খাটের উপর বসে পড়লো। বাচ্চাটার মাম্মা মাম্মা শব্দে ডাকা বুলি তাকে কিছু মনে করিয়ে দিচ্ছে কিন্তু অরণি চাচ্ছে না সে অতীত মনে করতে।সে বাচ্চাটার দিকে তাকিয়ে বললো,
-কে তুমি?তোমার আম্মু কে?এখানে কি করে এলে?কি চাও তুমি আমার কাছে?বাসায় তুমি কি ভাবে ঢুকলে?কালকে রাতে কোথায় গায়েব হয়ে গিয়েছিলে?
অরণি সব গুলো প্রশ্ন একসাথে করে বাচ্চা মেয়েটার চোখের দিকে তাকিয়ে রয়েছে। মেয়েটার চোখে এক মায়া রয়েছে। এই নিষ্পাপ চোখে যেন কত্ত আকুতি,মিনতি,প্র
শ্ন, ভালোবাসা পাওয়ার আকাঙ্ক্ষা জমে রয়েছে। চোখ গুলো তার চেনা চেনা লাগছে মনে হয় যেন এই চোখের নেশায় সে কত্তবার পড়েছে।চোখ থেকে নাকের দিকে তাকাতেই তার মনে হচ্ছিলো নাকটা মিশ্র গড়নের।একসময়কার তার খুব কাছের পরিচিত কারোর নাক আর তার নিজের নাকের সাথে মিল রয়েছে এই বাচ্চা মেয়েটির নাকের ।নাক থেকে ঠোঁটে নামতেই সে অদ্ভুত ভাবে চমকে গেলো!আরেহ বাচ্চাটার ঠোঁট টা একদম তার মত দেখতে শুধু তা নয় ঠোঁটের উপরের তিল টাও একদম তার ঠোঁটের উপরে থাকা তিলটার মত। অরণি আরও কিছু ভাবতে যাবে তার আগেই বাচ্চা মেয়েটি একগাল হাসি নিয়ে বলে উঠলো,
-মাম্মা মাম্মা ও ও ও মাম্মা, পাপা আয়
না অরণির আর এইসব সহ্য হচ্ছে না সে চিৎকার দিয়ে বলে উঠলো,
-না আমি তোমার মাম্মা নই।কেন এখানে এসেছো তুমি? কি চাও তুমি?
বাচ্চা মেয়েটি বলে উঠলো,
-তুমি আমার মাম্মা।
মাম্মা মাম্মা বলে মেয়েটা এক পা দু’পা করে অরণি দিকে এগিয়ে আসছে।
বাচ্চাটাকে নিজের দিকে এগিয়ে আসতে দেখে অরনি ভয়ে একটু একটু করে পিছনে যাচ্ছে।
মেয়েটি কিছুটা এসে হঠাৎ দাঁড়িয়ে পড়লো তারপর অরণির দিকে তাকিয়ে কাঁদো কাঁদো মুখ নিয়ে প্রশ্ন করলো,
-ওকে বুঝি খুব ভালোবাসো?
অরণি তখন নিজের পেটের হাত রেখে পিছনে সরে বসছিলো বাচ্চাটার এমন কথায় অরণি খুব অভাক হয়!কারণ তিন বছরের বাচ্চারাতো দু’একটা বুলি ছাড়া ঠিক মত কথা বলতে পারে না সেখানে এই বাচ্চা মেয়েটা ওকে প্রশ্ন করে বসলো!
অরণি উত্তর দিচ্ছে না দেখে মেয়েটা আবার প্রশ্ন করলো,
-বলোনা মাম্মা ওকে খুব বেশি ভালোবাসো?মাম্মা
অরণি বলে উঠলো,
-হ্যাঁ ভালোবাসি ও এখন আমার সব।তুমি প্লিজ চলে যাও।
অরণির উত্তর শুনে বাচ্চাটি কান্না করে বলতে লাগলো,
-তাহলে কেন সেদিন আমাকেও ওর মত করে ভালোবাসতে পারোনি?আমিওতো ওর মত ছিলাম ঠিক ও এখন যে জায়গাটায় রয়েছে।ওই উষ্ণ জায়গাটা থেকে কেন আমায় এমন টেনে হিছরে বের করলে মাম্মা?
মেয়েটার কান্নার শব্দ অরণি মাথায় তীরের মত এসে বিঁধছে অসহ্য যন্ত্রণা হচ্ছে তার মাথার মধ্যে।অরণি মেয়েটিকে ধমক দিয়ে বললো,
-চুপ কর তুমি।কি সব উল্টা পাল্টা কথা বলছো তুমি?কে তুমি?আমি তোমাকে চিনিনা আর চিনতে চাই ও না।
অরণি কথা শুনে বাচ্চাটি কান্না বন্ধ করে ওর দিকে তাকিয়ে রইলো তারপর বললো,
-চিন্তে পাচ্ছো না মাম্মা?আমি তোমার ফুল মাম্মা। তুমি বলেছিলে না আমি যেন তোমায় মাম্মা বলে ডাকি কিন্তু তুমিতো আমাকে পৃথিবীতে আসতেই দিলে না। তুমি ওই মহিলাটা কে দিয়ে আমাকে যন্ত্রণা দিয়ে ছিন্নভিন্ন করে দিলে।দেখো মহিলাটা আমায় কেমন করে ছিন্নভিন্ন করেছে..
এই কথা বলে বাচ্চা মেয়েটি ফ্লোরে পড়ে গেল আর অরণি দেখতে পেল ফ্লোরে পড়ে থাকা একটি বাচ্চার চুন্নভিচুন্ন মস্তিষ্ক, ছিন্নভিন্ন হাত-পা আর খণ্ডবিখণ্ড দেহ! এইসব দেখে অরণি চিৎকার দিয়ে উঠলো। অরণি চিৎকারে বাচ্চাটি আবার মানুষরূপে ফিরে এসে বললো,
-মাম্মা ভয় পেওনা আমার সেদিন খুব কষ্ট হয়েছিলো জানো মাম্মা?এখন তোমার গর্ভে যে রয়েছে তাকেও তুমি বের করে ফেলো তারপর চলো আমার সাথে।আমায় যেমন তিনমাস চার দিনের মাথায় ওই উষ্ণ জায়গা থেকে বের করে ফেলেছো ঠিক ওর ও তো এখন তিনমাস চার দিন চলে ওকে ও বের করে ফেলো। চলো মাম্মা চলো আমার সাথে আমার দুনিয়ায়।
বাচ্চাটার কথা শুনের পর অরণির পেটে ভীষণ যন্ত্রণাদায়ক ব্যাথা শুরু হয়েছে।অরণি চিৎকার করছে ব্যাথায়। রাফিকে কল করার জন্য ও ফোন খুঁজছে কিন্তু পাচ্ছে না এইদিকে ব্যাথা তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে।অরণি বিছানায় শুয়ে ব্যাথায় ছটফট করছে।অরণির এই কষ্ট দেখে বাচ্চা মেয়েটি হেসেই চলেছে।মুহূর্তেই অরণির পছন্দের সাদা বিছানারচাদরটি লাল হয়ে যাচ্ছে।আস্তে আস্তে অরণির চোখ বন্ধ হয়ে আসছে রুম অন্ধকার হয়ে যাচ্ছে।
.
কিছুদিন পর অরণি ড্রাইংরুমে যাচ্ছিলো টিভি দেখার ড্রাইংরুমে কাউকে বসে থাকতে দেখে অরণি থমকে দাঁড়ায়।তার অতি পরিচিত কেউ বসে আছে।তাকে উদ্দেশ্য করে অরণি বলে উঠে,
-অরণ্য তুমি আবার এসেছো? রাফি এখন বাসায় আছে তুমি কেন এখন আসছো?তোমাকে না আমি বারণ করেছি না আসার জন্য তাহলে তুমি কেন বার বার এসো আমার কাছে?
অরণির প্রশ্নের জবাব দিয়ে অরণ্য বলে উঠে,
-কি করবো বলো তোমাকে আমাদের সাথে না নিয়ে যাওয়া পর্যন্ত তো আমাকে আসতে হবে।দেখো আমি আর আমাদের মেয়ে তোমার জন্য অপেক্ষা করে আছি তুমি চলো আমাদের সাথে তাহলে আমাদের পরিবারটা একদম পরিপূর্ণ হয়ে যাবে।
অরণির কথা শুনে রাফি ড্রাইং রুমে চলে আসলো। এসে জিজ্ঞাসা করছে,
-কি হয়েছে অরণি?
অরণি রাফির কথায় চমকে উঠে পিছনে ফিরে বললো,
-দেখো না এই ছেলেটা আবার এসেছে।এই ছেলেটাকে আমি চিনিনা কত্তবার বারণ করেছি না আসতে তারপরও বার বার আসছে।
অরণির কথা শুনে রাফি ওকে বললো,
-ঠিক আছে ঠিক আছে আমি ওকে বারণ করে দিচ্ছি ও আর আসবে না তুমি চলো তো। ওষুধটা খাওনি তাই না?চলো ওষুধটা খেয়ে নিবে।
অরণির সেদিন মিসকারেজ হয়ে গিয়েছিলো তারপর থেকে সে অরণ্যকে দেখতে পাই। দিন দিন ওর অবস্থার অবনতি হচ্ছে এই দেখে রাফি ওকে একজন সাইকোলজিস্টকে দেখিয়েছেন।অরণির বক্তব্য সে তার চারপাশে একটা ছোট বাচ্চা আর একটা ছেলেকে ঘুরে বেড়াতে দেখে।সাইকোলজিস্ট বলেছেন অরণি মন থেকে তার মিসকারেজটা মেনে নিতে পারে নি আর মানুষিক ভাবে ভীষণ ভেঙ্গে পড়ায় তার এই অবস্থা হয়েছে এই জন্য সে তার চারপাশে একটা বাচ্চাকে ঘুরে বেড়াতে দেখে।এইসবের কোনো অস্তিত্ব নেই।
কিন্তু আসলেই কি তাই?
পাঁচ বছর আগে অরণ্য নামের এক ছেলের সাথে অরণির সম্পর্ক ছিলো রাফি সে কথাটা আজ পর্যন্ত জানে না।ঠিক তিন বছর আগে অরণ্যের সন্তান অরণির গর্ভে আসে যদিও সন্তানটি ছিলো অবৈধ আর তখন অরণ্যেরও বিয়ে করার মত অবস্থা ছিলো না শেষ পর্যন্ত এভোশান করতে হয় অরণিকে।তার দু’মাস পরেই রাফির ফ্যামিলি থেকে অরণিদের বাসায় বিয়ের প্রস্তাব পাঠানো হয়। রাফির টাকা পয়সার লোভে পড়ে অরণি বিয়েতে রাজি হয়ে যাই।অরণির হুট করে বিয়ে হয়ে যাওয়াটা শুনে অরণ্য নিজেকে সামলে নিতে না পেরে সেও বিদায় জানায় পৃথিবীকে।এইদিকে অরণি তার কোটিপতি হ্যাজবেন্ডকে নিয়ে সুখে সংসার করতে লাগলো।
.
রাফি চোখ খুলে দেখলো অরণি পাশে নেই ঘড়ির দিকে তাকাতেই দেখে ৩:৩০ বাজে।এতো রাতে অরণিকে পাশে দেখতে না পেয়ে রাফি ভয় পেয়ে গেলো।সে উঠে সব গুলো রুম চেক করলো কোথাও অরণিকে দেখতে পেল না হঠাৎ তার মনে হল বাইরের দরজাটা খোলা।রাফির মনে হতে লাগলো অরণি হয়তো ছাদের দিকে গেছে সে আর দেরী না করে তাড়াতাড়ি ছাদে চলে গেল।
এদিকে অরণি শুধু দেখছে অরণ্য আর সে বাচ্চা মেয়েটি তাকে ডাকছে তাদের কাছে যাওয়ার জন্য।অরণি হাটতে হাটতে যে কোথায় চলে এসেছে তার দিকে ওর কোনো খেয়াল নেই।
রাফি ছাদে এসে দেখে অরণি ছাদের একদম শেষ কর্ণারে দাঁড়িয়ে আছে আর এক পা দিলে সে পাঁচ তালা থেকে একদম নিচে গিয়ে পড়বে।রাফি চিৎকার দিয়ে অরণিকে ডেকে উঠলো। রাফির চিৎকার শুনে অরণি চমকে উঠে নিজের হুসে ফিরলো কিন্তু ততক্ষণে অনেক দেরী হয়ে গেছে অরণি চমকে উঠে সামনে পা বাড়িয়ে দিল আর সাথে সাথে ছাদ থেকে সে ছিটকে একদম নিচে গিয়ে পড়লো। রক্তে সব ভেসে যাচ্ছে অরণির হাতটা ভেঙ্গে উপর হয়ে আছে। একদম অরণ্য যেভাবে পড়ে ছিল অরণি ঠিক সে ভাবেই পড়ে রয়েছে।
———————সমাপ্ত—

সম্পর্কিত পোস্ট

পূনর্জন্ম

জুয়াইরিয়া জেসমিন অর্পি . কলেজ থেকে ফিরেই পিঠের ব্যাগটা বিছানায় ছুড়ে ফেললো অন্বেষা। তারপর পড়ার টেবিলের কাছে গিয়ে চেয়ার টেনে নিয়ে ধপ করে বসে দুই হাত দিয়ে মাথাটা চেপে ধরলো।প্রচণ্ড মেজাজ খারাপ ওর। আজ ওদের সেমিস্টার ফাইনালের রেজাল্ট দিয়েছে। একদমই ভালো করেনি সে। যদিও শুরু...

অনুভূতি

অনুভূতি

লেখা: মুন্নি রহমান চারদিকে ফজরের আজানের সুমধুর ধ্বনি ভেসে আসছে। বাইরে এখনো আবছা অন্ধকার। তড়িঘড়ি করে বিছানা ছাড়লো মালা। ঘরের কাজ সেরে বের হতে হবে ফুল কিনতে। তাড়াতাড়ি না গেলে ভালো ফুল পাওয়া যায় না আর ফুল তরতাজা না হলে কেউ কিনতে চায় না। মাথার ওপরে তপ্ত রোদ যেন...

অসাধারণ বাবা

অসাধারণ বাবা

লেখক:সাজেদ আল শাফি বাসায় আসলাম প্রায় চার মাস পর। বাবা অসুস্থ খুব।তা নাহলে হয়তো আরও পরে আসতে হতো।গাড়ি ভাড়া লাগে ছয়শো পঁচিশ টাকা।এই টাকাটা রুমমেটের কাছ থেকে ধার নিয়েছি।তার কাছে এই পর্যন্ত দশ হাজার টাকা ঋণ হয়েছে।বলি চাকরি হলেই দিয়ে দিব। পড়াশোনা শেষ করে দুই বছর...

৮ Comments

  1. Halima Tus Sadia

    সত্যিই গল্পটি দারুণ লিখেছেন।

    অরণী তার পাপের শাস্তি পেয়েছে।নিজের সুখের জন্য দুটি জীবন নষ্ট করছে।
    তাই তার এটা প্রাপ্য ছিলো।

    আপনি অনেক জায়গায় দাড়ি না দিয়ে বিস্ময়সূচক চিহ্ন ব্যবহার করছেন বেশি।

    শ্বশুর–শ্বশুড়
    হ্যাজবেন্ডকে—হাজবেন্ডকে
    ভেঙ্গে যাই–ভেঙ্গে যায়
    এভেবে–এই ভেবে
    এইজন্য–এজন্য
    জিজ্ঞাস –জিজ্ঞেস
    গোসলে–গোসল
    অভাক–অবাক
    দৌঁড়–দৌড়
    দৌঁড়াতে–দৌড়াতে
    চলে যাই–(যায়) হবে।
    হঠাৎতি–হঠাৎই
    কন্ঠে-কণ্ঠে
    সড়ে–সরে
    প্র শ্ন–প্রশ্ন
    পাচ্ছো না–পারছো না
    ব্যাথা-ব্যথা
    বিছানাচাদরটি–বিছানার চাদরটি

    ড্রাইংরুমে—ড্রইংরুমে
    পাই–পায়
    পারে নি–পারেনি
    এভোশান–এবোরশান
    দেরী–দেরি।

    বানানের প্রতি যত্নশীল হবেন।

    শুভ কামনা রইলো।

    Reply
    • MH Shuvo

      শ্বশুর, ভেঙে যায়, ড্রয়িংরুমে, জিজ্ঞাস ও জিজ্ঞেস উভয়টিই লেখা যায়।

      Reply
  2. আফরোজা আক্তার ইতি

    অনেক সুন্দরভাবে গল্পটা ফুটিয়ে তুলেছেন খুব ভালো লেগেছে। এভাবে অবৈধ সম্পর্কের কারণে অনেক ছোট্ট প্রাণ চলে যাচ্ছে ওপারে। গল্পে বিরামচিহ্ন সঠিকভাবে ব্যবহার হয় নি। গল্পে ইংরেজি শব্দ বেশি ব্যবহারে গল্পের ভাবমূর্তি কিঞ্চিৎ নষ্ট হয়েছে। বানানে কিছু ভুল রয়েছে।
    হ্যাজবেন্ড- হাজবেন্ড।
    কোথেকে- কোত্থেকে।
    এভেবে- এই ভেবে।
    অভাক- অবাক।
    হঠাৎতি- হঠাৎই।
    সড়ে গেল- সরে গেল।
    টেনে হিছড়ে- টেনে-হিঁচড়ে।
    এভোশান- এবোরশান।
    এগিয়ে যান। ভালো লেগেছে।

    Reply
  3. Anamika Rimjhim

    আপুরা সব বানান ভুল ধরিয়েই দিয়েছে তাই আর লিখলাম না।
    ভাল হয়েছে।শুভ কামনা।

    Reply
  4. জুয়েল ইসলাম

    বাচ্চ- বাচ্চা
    কত্তবার- কতবার
    বিরামচিহ্ন ব্যবহারে অনেক ভুল আছে।সেগুলো পরবর্তী সময়ে দেখে নিবেন।গল্পটা ভালো ছিলো।শুভকামনা রইলো।

    Reply
  5. বুনোহাঁস

    প্রকাশিত একটি গল্প। হিজিবিজি গ্রুপে আগস্ট মাসের প্রতিযোগিতার জন্য দেয়া হয়েছিল।

    Reply
  6. Sajjad alam

    ভুলের পরিমাণ এত বেশি যে, হাঁপিয়ে গেছি। তবুও কিছু ভুল মার্ক করলাম,
    শ্বশুর-শাশুড়ির কোনো ঝামেলা নেই কোটিপতি হ্যাজবেন্ডকে নিয়ে আলাদা থেকে সে।____ (বাক্যটা কেমন যেন অসঙ্গতিপূর্ণ। এখানে দুটো বাক্য করলে বাক্যটা মিলবে।
    .
    ছোট বাচ্চার হাসির শব্দে তার ঘুম ভেঙ্গে যাই।___ (যাই–যায়। অনেক জায়গায় যাই ব্যবহার করেছেন। সবগুলোতে যায় হবে।)
    .
    কোথেকে___ কোত্থেকে/কোথা থেকে
    বাসায়তো___ বাসায় তো। (হয়তো, নয়তো বাদে তো অালাদা বসবে।
    বেসে___ ভেসে
    এখানেতো___ এখানে তো
    এভেবে___ এভাবে
    .
    আর দেখো মা কি না কি ভেবে ভয় পাচ্ছি____ কী, কী। (আপনার কী/কি ব্যবহার সমস্যা আছে। দেখে নিবেন।)
    .
    এতো___ এত
    .
    -কি ব্যাপার আজকে চোখ মুখ এতো লাল কেন তোমার?____ কী
    .
    গেলো___ গেল
    .
    আজকে এসেই গোসলে করছো যে?___ গোসল
    .
    ভূত দেখার মত____ মতো
    .
    অভাক___ অবাক
    এমন ভাবে___ এমনভাবে
    এখানেইতো___ এখানেই তো
    দৌঁড়___ দৌড়
    দৌঁড়তে___ দৌড়াতে
    .
    কি অাশ্চর্য।___ কী
    .
    সড়ে___ সরে
    কিভাবে___ কীভাবে
    গ্লাসেতো___ গ্লাসে তো
    কন্ঠে___ কণ্ঠে
    কাজ গুলো___ কাজগুলো
    কি ভাবে___ কীভাবে
    সব গুলো___ সবগুলো
    চোখ গুলো___ চোখগুলো
    অদ্ভুত ভাবে___ অদ্ভুতভাবে
    .
    তিল টাও___ তিলটাও
    ঠোঁট টা___ ঠোঁটটা
    বলোনা___ বলো না
    বাচ্চারাতো___ বাচ্চারা তো
    হিছরে___ হিচড়ে
    আমিওতো___ আমিও তো
    চিনিনা___ চিনি না
    চাই ও___ চাইও
    তুমিতো___ তুমি তো
    চুন্নভিচুন্ন___ চূর্ণবিচূর্ণ
    ব্যাথা___ ব্যথা
    বার বার___ বারবার
    পারে নি___ পারেনি
    দিন দিন___ দিনদিন
    এভোশন___ এ্যাবরশন
    .
    দেরী ___ দেরি
    হাটতে___ হাঁটতে
    সে ভাবেই___ সেভাবেই।
    .
    এছাড়াও বিরাম চিহ্নের কথা নাই বা বললাম।
    .
    নামকরণটা যথার্থ
    কনসেপ্টটা অসাধারণ।
    বাট ঠিকমতো সাজাতে পারেননি। এলোমেলো তো করেছেনই, সহজ বানানগুলোও ভুল করেছেন।
    কী আর বলব বলেন?
    পুরোপুরি হতাশ হয়েছি।
    পরেরবারের জন্য শুভ কামনা।

    Reply
  7. Mahbub Alom

    ভূতুড়ে গল্প কম পড়ি।তবে এই গল্পটা একটু আলাদা ছিলো।সত্যি দারুণ হয়েছে।
    অরণি দুজন মানুষকে ঠকিয়েছে।একজন নিষ্পাপ সন্তান আরেকজন তার সেই নিষ্পাপ সন্তানের জন্মদাতা।
    অনেক বড় ভুলের মাশুল এখন অরণিকে দুটি প্রাণের বিনিময়ে শোধ করতে হচ্ছে।
    এজন্যই ইসলাম বিয়ের আগ পর্যন্ত একজন নারীর সাথে একজন পুরুষের মেলামেশা সমর্থন করে না।
    বানানের ভুল গল্প পড়ায় বিরক্তি হয়ে দাঁড়ায়।
    বানানে অনেক ভুল ছিলো।

    ধন্যবাদ

    Reply

Submit a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *