অনন্তকালের ধারা
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৮
লেখকঃ

 37 বার দেখা হয়েছে

এই লেখক এর আরও লেখা পড়ুনঃ

মোহা:এ.কে.নিহাজ

বহিছে বাতাস হেথা মৃদু রবে,
উত্তাল ঢেউ ফিরিছে সরবে।
হেথা স্রোতধারা বহে কলকলে-
আজীবন জীবনের তৃষ্ণা মেটাবে বলে।
বসন্তের বায়ে কোকিলের গান,
রাঙা পুষ্পের রঙ রাঙায়েছে বাগান।
মাঝি খেয়াঘাটে ভিড়ায়েছে তরী,
বেলা-অবেলায় দিতে হবে পাড়ি।
যেতে হবে চলে সমস্ত ফেলে-
করে তারাদের দেশে ঘর।
ঠাওরাই সবে যেতে হবে তবে-
দেখিতেছি এ ধরা শত বৎসর।
হেথা রহিব না আমি,
তবু কোকিল গাহিবে গান,
পুষ্প রাঙাবে বাগান,
তৃষ্ণা মেটাবে স্রোতধারা,
বহিবে বাতাস,
ফিরিবে উত্তাল ঢেউ!
জানি,একদিন নেই হয়ে যাব-
করিবে না স্মরণ কেউ!
জগতের স্বীকার্য ধারা যত
রহিবে অনন্তকাল অবিরত!
এ কথা আজ বাড়ায়েছে মায়া,
বার্ধক্যের ছায়া-
করিয়াছে দেহ ভার।
যদি কোনো পথ থাকে
ছায়াপথ বাকে
দিচ্ছি এ কথা,হেথা ফিরিব আবার।

সম্পর্কিত পোস্ট

তুলসী বনের বাঘ

তুলসী বনের বাঘ --আল-মুনতাসির। চিনলে নাকো তাকে সে যে তুলসী বনের বাঘ ! ছদ্মবেশে ছড়িয়ে দিলো বিষম বিষের নাগ। ইচ্ছে করে কামড় খেলে, ভরলে হৃদয় বিষের নীলে কী করে আর দেখবে প্রিয় কৃষ্ণচুড়ার বাগ ? চিনলে নাকো তাকে সে যে তুলসী বনের বাঘ ! চোখে তোমার বিষের তেজে পর্দা এলো নেমে, জগত...

ভালোবাসা রং বদলায়

: ভালোবাসা রং বদলায় লেখা: অদ্রিতা জান্নাত ছোট মেয়েটা খুব করে কেঁদে কেঁদে অনুরোধ করেছিল আমি যেন একটি হলেও তার কাছ থেকে ফুল কিনে নেই, ঠিক যতবার আমি তাকে ঠেলে দূরে সরিয়ে দিচ্ছিলাম সে যেন ঠিক ততটাই আমার পিছু ছুটতে লাগল। আচ্ছা, এই যে শিশুটা যে কিছু টাকার বিনিময়ে আমাকে...

গোপন আর্তনাদ

কবিতা - গোপন আর্তনাদ #জয়নাল_আবেদীন মনে পড়ে কাজল চোখে মুগ্ধ করে রাখতে আমায়। কখনো নির্মল হাসিতে ভরিয়ে দিতে চারপাশ। ভুলে গেছো সেদিন ঘাটের পাশে নূপুর পায়ে নৃত্যের তালে এসেছিলে। লাল শাড়িটা এলোমেলো জড়িয়ে, মুখটা কেমন গম্ভীর ও করুণ দেখেছিলাম। বারবার আকাশে মেঘের গর্জন, বৃষ্টির...

৬ Comments

  1. আখলাকুর রহমান

    মুগ্ধতা রইল।
    সুন্দর শব্দ চয়ন কবিতাকে মুখরিত করেছে।
    রঙিন দুনিয়াতে প্রাণ ত্যাগ করলে সব তুচ্ছ।
    লেখক ফিরে আসুক, স্বপ্ন পূরণ হোক।
    শুভ কামনা রইল।

    Reply
  2. Fatema Kauser

    শব্দ চয়ন বেশ চমৎকার।তবে কিঞ্চিৎ সাধু চলিতের মিশ্রণ ঘটেছে। যেমন – হবে, যেতে । শুভ কামনা নিরন্তর

    Reply
  3. আফরোজা আক্তার ইতি

    সুন্দর ছন্দমিল আর মনোরম শব্দচয়নে গঠিত একটা অসাধারণ কবিতা। আমরা পৃথিবীতে বেঁচে আছি,তাই পৃথিবীর প্রতিটি সৌন্দর্যই উপল্পব্ধি করতে পারছি। একসময় আমরাও আমাদের আয়ু শেষ হলে এই পৃথিবী ছেড়ে চলে যাব তারার দেশে, না ফেরার দেশে। কিন্তু তারপরও এই পৃথিবীর কোন কিছুই বদলাবে না, প্রকৃতি তার নিয়মে চলবে, পাখি কলরব করবে। অনন্তকালের এই ধারা কখনোই বদলাবে না।
    খুবই সুন্দর লিখেছেন। চরণে সাধু আর চলিত ভাষার মিশ্রণ ঘটেছে। নির্ভুল বানানের কবিতা। কবির প্রতি শুভ কামনা রইল।

    Reply
  4. আরাফাত তন্ময়

    অত্যন্ত চমৎকার একটা বিষয়বস্তু। লেখার ধরণ ভালো লাগলো। আপনি সম্ভবত সাধু ভাষায় কবিতাটি লিখতে চেয়েছেন। পুরোপুরিভাবে ব্যর্থ এই জায়গায়। সাধু ভাষা বর্তমানে অনেক কঠিন। কেননা এর চর্চা কম। এমন বিষয় নিয়ে লিখতে হলে চর্চা থাকা লাগে প্রচুর। আপনার কবিতায় ‘গুরুচণ্ডালী’ দোষ আছে। যা কবিতার মান একদম নিচে নামিয়ে দিল। বিষয়গুলো পরবর্তীতে মাথায় রাখার অনুরোধ।
    শুভ কামনা রইলো আগামীর জন্য।

    Reply
  5. Halima tus sadia

    অসাধারণ একটি কবিত।
    পাঠিকা পড়ে মুগ্ধ।খুবই সুন্দর করে গুছিয়ে লিখেছেন।

    একদিন সবাইকে চলে যেতে হবে না ফেরার দেশে,সেখান থেকে কেউ আসতে পারবে না।

    ফুট ফুটবে বাগানে,তৃষ্ণা মেটাবে স্রোতধারা,
    বইবে বাতাস।ফিরিবে উত্তাল ঢেউ।প্রকৃতি বদলাবে না।সবই ঠিক থাকবে ।
    তবে আমরা থাকবো না।

    চরণগুলোর ছন্দের মিল আছে।
    নির্ভুল কবিতা।
    শুভ কামনা রইলো।

    Reply
  6. মাহফুজা সালওয়া

    ভালো লেগেছে।
    খুব সুন্দর একটি কবিতা,থিমটাও দারুণ।
    অল্পকিছু গুরুচণ্ডালী দোষ রয়েছে।
    শব্দচয়ন অসাধারণ!
    শুভকামনা রইলো।

    Reply

Submit a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *