মা
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৮
লেখকঃ

 206 বার দেখা হয়েছে

এই লেখক এর আরও লেখা পড়ুনঃ

মোঃ আকাশ মৃধা(আমি)

জন্ম দিয়েছো তুমি
প্রসবে কষ্ট দিয়েছি আমি
তবুও তুমি হেসেছো
কনকনানি শীতে,আগলে রেখেছো বুকে
রোদে আমায় দিয়েছো ছায়া,পুড়েছো তুমি
বৃষ্টিতে আমার হয়েছো ছাতা,ভিজেছো তুমি
তবুও তুমি হেসেছো
খায়িয়েছো আমাকে খাওনি তুমি
ক্ষুদা কি বুঝিনি আমি বুঝেছো তুমি
তবুও তুমি হেসেছো
তোমার ত্যাগের নেই কোনো শেষ
আমায় রেখেছো বেশ
আমার হাসিতে খুজে নিয়েছো সুখ শান্তি
ভুলে সব দুঃখ ক্লান্তি
কলমের কালি হবে শেষ
তোমার কথা লেখা হবে না বেশ
কারন! তুমি শ্রেষ্ঠ তুমিই সেরা
তুমি আমার মা।

সম্পর্কিত পোস্ট

তুলসী বনের বাঘ

তুলসী বনের বাঘ --আল-মুনতাসির। চিনলে নাকো তাকে সে যে তুলসী বনের বাঘ ! ছদ্মবেশে ছড়িয়ে দিলো বিষম বিষের নাগ। ইচ্ছে করে কামড় খেলে, ভরলে হৃদয় বিষের নীলে কী করে আর দেখবে প্রিয় কৃষ্ণচুড়ার বাগ ? চিনলে নাকো তাকে সে যে তুলসী বনের বাঘ ! চোখে তোমার বিষের তেজে পর্দা এলো নেমে, জগত...

ভালোবাসা রং বদলায়

: ভালোবাসা রং বদলায় লেখা: অদ্রিতা জান্নাত ছোট মেয়েটা খুব করে কেঁদে কেঁদে অনুরোধ করেছিল আমি যেন একটি হলেও তার কাছ থেকে ফুল কিনে নেই, ঠিক যতবার আমি তাকে ঠেলে দূরে সরিয়ে দিচ্ছিলাম সে যেন ঠিক ততটাই আমার পিছু ছুটতে লাগল। আচ্ছা, এই যে শিশুটা যে কিছু টাকার বিনিময়ে আমাকে...

গোপন আর্তনাদ

কবিতা - গোপন আর্তনাদ #জয়নাল_আবেদীন মনে পড়ে কাজল চোখে মুগ্ধ করে রাখতে আমায়। কখনো নির্মল হাসিতে ভরিয়ে দিতে চারপাশ। ভুলে গেছো সেদিন ঘাটের পাশে নূপুর পায়ে নৃত্যের তালে এসেছিলে। লাল শাড়িটা এলোমেলো জড়িয়ে, মুখটা কেমন গম্ভীর ও করুণ দেখেছিলাম। বারবার আকাশে মেঘের গর্জন, বৃষ্টির...

১৬ Comments

  1. Akash Mridha

    Thanks

    Reply
  2. sourav

    valo lagce

    Reply
  3. আখলাকুর রহমান

    কনকনানি – কনকনে (সাধারণত ব্যবহার করা হয়)

    ক্ষুদা – ক্ষুধা

    খুজে – খুঁজে

    মায়ের গুণগান গেয়েছেন। অসাধারণ লেগেছে।
    মায়ের চেয়ে দামি কেউ নয় পৃথিবীতে।
    ভালোবাসি মাকে অনেক।
    শুভ কামনা রইল।

    Reply
    • Akash Mridha

      ভুল ধরিয়ে দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ
      আখলাকুর রহমান ভাই

      Reply
  4. Md Najmul

    cokhe pani ase porlo kobita ta pore

    Reply
  5. Mdali

    Xox nice all

    Reply
  6. সুজন হোসেন

    খুব সুন্দর একটি কবিতা মাকে আমিও খুব ভালোবাসি ধন্যবাদ ভাই এমন একটি কবিতা উপহার দেওয়ার জন্য

    Reply
  7. সুজন হোসেন

    Awesome ধন্যবাদ ভাই এমন একটি কবিতা উপহার দেওয়ার জন্য

    Reply
  8. Md Hridoy

    খুব ভালো লাগলো।

    Reply
  9. আফরোজা আক্তার ইতি

    অসাধারণ। মাকে নিয়ে লেখে সব কিছুই সুন্দর হয়। মা আমাদের কত যত্ন করে লালন পালন করে,আমাদের জন্ম দেয়া থেকে সারাজীবন লালন পালন করেন কত কষ্ট করে,ভাবলেই চোখে পানি চলে আসে।খুব ভালো লিখেছেন তবে বেশ কিছু বানান ভুল আছে।আর কিছু চরণে কমা ব্যবহার করলে ভালো হত।
    কনকনানি- কনকনে।
    খায়িয়েছ- খাইয়েছ।
    ক্ষুদা- ক্ষুধা।
    খুজে- খুঁজে।
    কারন- কারণ।

    Reply
    • Akash Mridha

      জ্বি ধন্যবাদ
      #Ms Eti

      Reply
  10. Akash Mridha

    আমি বানান গুলো ঠিক করে নিবো আপনাকে ধন্যবাদ
    #Ms Eti

    Reply
  11. Akash Mridha

    আমি বানান গুলো ঠিক করে নিবো আপনাকে ধন্যবাদ
    #Ms_Eti

    Reply
  12. আরাফাত তন্ময়

    সকল দুঃখের ছায়া
    বুনোহাঁস।

    আমি প্রিয়তম বিসর্জনে ব্যথিত ছিলাম
    দুকূল হারিয়ে দিশেহারা হলাম,
    একটু আশ্রয়ের জন্য যখন ব্যাকুলিত
    মমতাময়ী মায়ের আঁচলের তলায়
    মাথা গুঁজবার ঠাঁই পেলাম।
    সহায় সম্বল হারিয়ে
    আমি করছি আর্তনাদ,
    ঠিক তখনই কাছে পেলাম
    দুঃখ দূর করার জাদুকরী সেই ফাঁদ।
    আজ আমি এসেছি
    মায়ের মুখখানি দেখেছি
    খেয়াল করেছি
    রত্নগর্ভার ঠোঁটের কোণার লুকায়িত হাসি।
    দিন শেষে ঘর্মাক্ত চেহারায়
    এসে পৌঁছেছি মায়ের দুয়ারে
    মা আমার,
    পরম স্নেহে কোলে নিয়েছে জড়িয়ে।

    দারুণ লিখেছেন, দিয়েছো, রয়েছো ইত্যাদি শব্দের শেষে ো কার হয় না। শুভ কামনা রইলো।

    Reply
  13. Ibrahim

    লেখা খুবই ভালো সুন্দর একটি কবিতা শুভ কামনা রইলো

    Reply
  14. Halima tus sadia

    অসাধারণ একটি কবিতা মাকে নিয়ে।
    পড়ে মুগ্ধ হলাম।

    মায়ের কারণেই এ পৃথিবীতে আসা।প্রসব বেদনা সহ্য করে রইছে।তবুও সেই কষ্টকে কষ্ট মনে করেনি।
    জন্মের পর থেকে যত্ন,আদর ভালোবাসা দিয়ে বড় করে।
    নিজে না খেয়ে আমাদের আগে খাওয়ান।
    কতো আনন্দ,শখ ত্যাগ করে।
    মায়ের সম্পর্কে লিখে শেষ করা যাবে না।
    বানানে ভুল আছে
    ক্ষুদা–ক্ষুধা
    খুজে–খুঁজে
    খায়িয়েছ–খাইয়েছ
    শুভ কামনা রইলো।

    Reply

Submit a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *