দুঃখিনী মা
প্রকাশিত: জানুয়ারী ১১, ২০১৯
লেখকঃ

 153 বার দেখা হয়েছে

এই লেখক এর আরও লেখা পড়ুনঃ

জুবায়ের আহমদ

ছেলে এখন বড় হয়েছে,
মাকে গিয়েছে ভুলে ।
মায়ের এখন ধার ধারে না,
জ্বালায় ক্রোধের রোষানলে।
শিশুকালে ছিলে যবে,
মায়েরই কোলে।
বুকে আগলে রেখেছিল,
কষ্ট পাবে বলে।
বিয়ে করেছো, বউ পেয়েছো,
পর করেছো মাকে।
ছাড় পাবে না, হবে সাজা
রোজ-হাশরে।
মাকে তুমি ভুল বুঝো না
ওরে বাছাধন,
নিজেকে যে ভুলে গিয়ে,
তোমায় করেছে আপন।
রাসূল বলেন স্বর্গ তোমার
মায়ের চরণ তলে,
করো সম্মান তাঁকে
পাবে সুখ পরকালে।
করো ফরিয়াদ দু’হাত তুলে
রবের দরবারে,
ক্ষমা ঘোষণা আসে যেন
পিতা-মাতার তরে।

সম্পর্কিত পোস্ট

তুলসী বনের বাঘ

তুলসী বনের বাঘ --আল-মুনতাসির। চিনলে নাকো তাকে সে যে তুলসী বনের বাঘ ! ছদ্মবেশে ছড়িয়ে দিলো বিষম বিষের নাগ। ইচ্ছে করে কামড় খেলে, ভরলে হৃদয় বিষের নীলে কী করে আর দেখবে প্রিয় কৃষ্ণচুড়ার বাগ ? চিনলে নাকো তাকে সে যে তুলসী বনের বাঘ ! চোখে তোমার বিষের তেজে পর্দা এলো নেমে, জগত...

ভালোবাসা রং বদলায়

: ভালোবাসা রং বদলায় লেখা: অদ্রিতা জান্নাত ছোট মেয়েটা খুব করে কেঁদে কেঁদে অনুরোধ করেছিল আমি যেন একটি হলেও তার কাছ থেকে ফুল কিনে নেই, ঠিক যতবার আমি তাকে ঠেলে দূরে সরিয়ে দিচ্ছিলাম সে যেন ঠিক ততটাই আমার পিছু ছুটতে লাগল। আচ্ছা, এই যে শিশুটা যে কিছু টাকার বিনিময়ে আমাকে...

গোপন আর্তনাদ

কবিতা - গোপন আর্তনাদ #জয়নাল_আবেদীন মনে পড়ে কাজল চোখে মুগ্ধ করে রাখতে আমায়। কখনো নির্মল হাসিতে ভরিয়ে দিতে চারপাশ। ভুলে গেছো সেদিন ঘাটের পাশে নূপুর পায়ে নৃত্যের তালে এসেছিলে। লাল শাড়িটা এলোমেলো জড়িয়ে, মুখটা কেমন গম্ভীর ও করুণ দেখেছিলাম। বারবার আকাশে মেঘের গর্জন, বৃষ্টির...

৪ Comments

  1. আফরোজা আক্তার ইতি

    অসাধারণ! পিতামাতার মূল্য অনেকেই বুঝে না, কেউ হারিয়ে বুঝে আবার কেউ না থাকলে বুঝে। তাঁরা আমাদের এই দুনিয়ার আলো দেখিয়েছেন, যতই তাঁদের দুনিয়ার সকল সম্পদ এনে দেই না কেনো, কোনোভাবেই তাঁদের স্নেহের মূল্য শোধ করতে পারব না।
    খুবই ভালো লিখেছেন। তবে পড়ে ছড়ার মতো স্বাদ পেলাম।
    বানান নির্ভুল। শুভ কামনা অজস্র।

    Reply
  2. আফরোজা আক্তার ইতি

    মাতা-পিতা সকল কিছুর উর্ধ্বে। কোনকিছুর বিনিময়েই তাঁদের স্নেহের মূল্য পরিশোধ করা যায় না, তেমনি পৃথিবীর সব সম্পদ ফিরে পাওয়া গেলেও বাবা মা চলে গেলে আর ফিরে পাওয়া যায় না। প্রতিটি সন্তান যেনো পিতা-মাতার সঠিক মূল্যায়ন করতে পারে, কোনো মা-বাবাকে যেনো সন্তানের থেকে কষ্ট পেয়ে চোখের পানি ফেলতে না হয় এটাই আবেদন।
    অনেক সুন্দর লিখেছেন কবিতাটা। অজস্র শুভ কামনা আপনার জন্য।

    Reply
  3. Halima tus sadia

    দারুণ লিখেছেন।
    মা’কে নিয়ে কবিতা।
    মনোমুগ্ধকর লেখা।ছন্দের ধারাবাহিকতা রয়েছে।
    প্রতিটি লাইন খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
    লেখনশৈলীও সুন্দর।

    মা বাবা কষ্ট করে বড় করে আর সেই বা মাকেই বউ পেয়ে ভুলে যায়।বাবা মা খারাপ হয়ে যায়।ক্রোধে ক্ষেপে থাকে।

    কিন্তু হাশরের ময়দানে এর জন্য কঠিন শাস্তি রয়েছে।

    বানানেও ভুল নেই।

    শুভ কামনা রইলো।

    Reply
  4. Md Rahim Miah

    বাহ্ চমৎকার লিখেছেন। মাকে নিয়ে ফুটে উঠেছে আর সমাজের কিছু ছেলের নীতি। বিয়ের পরই কিছু ছেলে মাকে ভুলে যায়। তাদেরকে অবহেলা করে অনেকে বউয়ের কথা শোনে। এমন কি অনেকে বৃদ্ধাশ্রমে রেখে আসে। কবিতার মাঝে কবি সবাইকে মনে করিয়ে দিয়েছে মাকে ভুলা যাবে না। তাদের পায়ের নিচে জান্নাত। তাই কষ্ট দেওয়া চলবে না। বানানে ভুল চোখে পড়েনি, অনেক অনেক শুভ কামনা রইল।

    Reply

Submit a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *