আকুতি
প্রকাশিত: অক্টোবর ১৭, ২০১৮
লেখকঃ

 204 বার দেখা হয়েছে

এই লেখক এর আরও লেখা পড়ুনঃ

লেখা : তানজিনা তানিয়া
.
ভালোবাসা কি দুঃসাধ্য কাজ রুপমদা?
ভালোবাসা তো কাঁটাতারের বেড়া নয় যে, তোমাকে এর কাছে এলে রক্তাক্ত হতে হবে।
ভালোবাসা তো মহাসাগর নয় যে, সাঁতার না জানলে ডুবতে হবে।
রুপমদা, অল্প অল্প করে কী অন্তর ছোঁয়া যায় না ?
শিশির কণাতেও নাকি দরিয়া হয়, তাহলে আমার ভিতরের ছোট ছোট আকুতিগুলো তোমার মনে ভালোবাসা জন্ম দেয় না কেন?
আমার বুকে তো অজানা হাহাকার খাঁ খাঁ করে উঠে।
যেন সূর্যের সবটুকু তাপে ঠাসা বুকের ভিতরটা।
তুমি কি একটুখানি ছুঁয়ে দিয়ে আমার চোখে সুখের জল এনে দিতে পারো না ?
রোজ রোজ ক্ষতবিক্ষত মনের প্রতিটি কোণায় কোণায় ছত্রাকের মতো জন্ম নেয় অভিমান।
ভালোবাসা আর অভিমানের কোলাহলে সৃষ্ট যন্ত্রণা কখনও অনুভব করেছ তুমি?
যে গোলাপ গাছটা নিজের অজান্তেই বুকের ভিতর রোপন করে দিয়েছ, সেটা থেকে রোজ রোজ ঝরে পড়ে ফুটন্ত গোলাপ।
তারপর ঝরা গোলাপ থেকে বিচ্যুত হয় তার কোমলমতি পাপড়িগুলো।
বাসী অভিমানের স্তুপে গড়ে উঠা ছত্রাকের মতো অসংখ্য ছত্রাকে ছেয়ে যায় সেই ফুলের পাপড়িগুলো।
সবকিছুর সমন্বয়ে বুকগহীনে ভাংচুর শুরু হয়, শুরু হয় তীব্র ব্যথা।
এমন বাজেভাবে নষ্ট হয় গোলাপের পাপড়িরা যে আমার ভীষণ কান্না পায়।
যে চোখে কাজল লেপ্টে হরিণী চোখের অধিকারিণী হয়েছিলাম,
সে চোখে ঝর্ণা তৈরি হয়েছে, প্রচন্ড বেগে পানি প্রবাহিত হয়।
প্রবল সেই স্রোতে বুকের পাহাড় ক্ষয়ে ক্ষয়ে নদী হয়।
সেই নদী সাগরে গিয়ে মিশে।
তারপর কেবল স্রোত আর জোয়ার।
একটুখানি ভাটার আশায় মনপাখিটা চাতক হয়ে উঠে।
না, ভাটার দেখা মিলে না। জোয়ারের পানিতে উপচে উঠে মনের আঙিনা।।
উপচানো সেই পানি চোখের সব কাজল ধুয়ে নিয়ে যায়।
আমি বেহায়া হই, শতশত মানুষের ভীড় ঠেলে আমি ছুটে যাই তোমার কাছে।
লোকে আমার নাম দেয় বেহায়া, কলঙ্কিনী।
আমি আশায় থাকি এই কলঙ্কিনীর সব কালো দাগ তুমি সিঁদুরের লালে ভরিয়ে দিবে।
সেকেন্ড, মিনিট তারপর ঘণ্টার কাঁটা ঘুরে যায় অবিরত।
দিন, মাস আর বছরও অতিবাহিত হয়।
আমি আমার সিঁথির কাছে তোমার হাতের অস্তিত্বটার অপেক্ষায় থাকি একটা সিঁদুর কৌটা সমেত।
না, আমার সিঁথি শূন্য থেকে যায়।
আবারও মনে প্রশ্ন জাগে, ভালোবাসা কি তবে সত্যিই দুঃসাধ্য কাজ?

সম্পর্কিত পোস্ট

তুলসী বনের বাঘ

তুলসী বনের বাঘ --আল-মুনতাসির। চিনলে নাকো তাকে সে যে তুলসী বনের বাঘ ! ছদ্মবেশে ছড়িয়ে দিলো বিষম বিষের নাগ। ইচ্ছে করে কামড় খেলে, ভরলে হৃদয় বিষের নীলে কী করে আর দেখবে প্রিয় কৃষ্ণচুড়ার বাগ ? চিনলে নাকো তাকে সে যে তুলসী বনের বাঘ ! চোখে তোমার বিষের তেজে পর্দা এলো নেমে, জগত...

ভালোবাসা রং বদলায়

: ভালোবাসা রং বদলায় লেখা: অদ্রিতা জান্নাত ছোট মেয়েটা খুব করে কেঁদে কেঁদে অনুরোধ করেছিল আমি যেন একটি হলেও তার কাছ থেকে ফুল কিনে নেই, ঠিক যতবার আমি তাকে ঠেলে দূরে সরিয়ে দিচ্ছিলাম সে যেন ঠিক ততটাই আমার পিছু ছুটতে লাগল। আচ্ছা, এই যে শিশুটা যে কিছু টাকার বিনিময়ে আমাকে...

গোপন আর্তনাদ

কবিতা - গোপন আর্তনাদ #জয়নাল_আবেদীন মনে পড়ে কাজল চোখে মুগ্ধ করে রাখতে আমায়। কখনো নির্মল হাসিতে ভরিয়ে দিতে চারপাশ। ভুলে গেছো সেদিন ঘাটের পাশে নূপুর পায়ে নৃত্যের তালে এসেছিলে। লাল শাড়িটা এলোমেলো জড়িয়ে, মুখটা কেমন গম্ভীর ও করুণ দেখেছিলাম। বারবার আকাশে মেঘের গর্জন, বৃষ্টির...

২ Comments

  1. Naeemul Islam Gulzar

    “ভালোবাসা কি তবে সত্যিই দুঃসাধ্য কাজ?”
    -:হ্যা,ভালোবাসা দুঃসাধ্য কাজ,যা সবার দ্বারা হয়না।
    অসাধারণ লেগেছে কবিতাটি।শুভকামনা নিরন্তর

    Reply
  2. khushina khatun

    পাঠক বাকরূদ্ধ।
    বাস্তবের সঙ্গে অসম্ভব সাদৃশ্য পেয়ে। ভাবনারখেই হারিয়ে ফেলছি বারবার এত বাস্তব কীভাবে হল?

    Reply

Submit a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *